ডিভোর্সের চার কারণ…

144
Trouble relationship flat contour vector illustrations set. Arguing, quarreling. Cheating issue. Marriage problem. Misunderstanding between husband and wife. Unhappy couple isolated cartoon characters

আজকালকার দিনে প্রেমিক-প্রেমিকা বা স্বামী-স্ত্রীয়ের মধ্যে প্রেম যতটাই বেশি, বিচ্ছেদও ঠিক ততটাই। আইনত বিয়ের সংখ্যার চেয়েও বেড়ে গিয়েছে আইনত বিচ্ছেদের সংখ্যা। হুট করে যেমন প্রেম আসে তেমনই প্রেমে উদাসীনতা আসতেও সময় লাগে না।

সম্প্রতি একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, বেশিরভাগ দম্পতির মধ্যেই বিয়ের আগে যতটা প্রেম ছিল বিয়ের পর তার সিংহভাগ থাকছে না। কাজের চাপে এসেছে সঙ্গীর প্রতি অনীহা। এছাড়াও চেপে যাওয়ার কারণেও বাড়ছে সমস্যা। এই প্রজন্মে বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে মূল কারণগুলি হল-

ভালোবাসার অভাব
৪৭ শতাংশ ডিভোর্সের ক্ষেত্রে মূল কারণ হল ভালোবাসার অভাব। সবটা বাইরে থেকে দেখে বোঝাও যায় না। বেশিরভাগ সময়ে দম্পতিদের মধ্যে এই টানটাই থাকছে না। আদালতে গিয়ে তাঁরা বলছেন স্বামীর প্রতি বা স্ত্রীর প্রতি কোনো রকম ভালোবাসার অনুভূতি নেই। ফলে বছরের পর বছর এক ছাদের নীচে থাকা সম্ভব নয়।

চাপা স্বভাবের মানুষ
অনেকেই আছেন, বেশ চাপা স্বভাবের। তাঁরা ভাবেন, এতে তাঁরা লাভবান হচ্ছেন। কিন্তু সমীক্ষায় জানা যায়, চাপা স্বভাবের সঙ্গীর প্রতি বিরক্ত হন প্রায় সকলেই। ৪৪ শতাংশ ডিভোর্স হয় এই লুকোচুরি স্বভাবের কারণে।

সহানুভূতির অভাব
একে অপরের প্রতি সহানুভূতি না থাকলে সেই সম্পর্কে কোনো জোর থাকে না। বিশেষজ্ঞদের মতে ভালোবাসার থেকেও জটিল এবং কঠিন হল সহানুভূতি।

মনের মিল
দুজন মানুষ কখনই এক হন না। কেউ পোলাও ভালোবাসেন তো কেউ বিরিয়ানি। কিন্তু নিজের মধ্যে কিছুটা সামঞ্জস্য অবশ্যই থাকা প্রয়োজন। বিশেষত কমন কিছু জায়গায় ভালোলাগা কাজ করা দরকার। মূল্যবোধ এতদিন এক ছিল, হঠাৎ আজ আলাদা এরকম হলে খুব মুশকিল। (সূত্র : ইন্ডিয়ান টাইমস)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here