1. [email protected] : abir :
  2. [email protected] : Mohin Soy : Mohin Soy
  3. [email protected] : Narayanganj Tribune : Narayanganj Tribune
  4. [email protected] : Sifat Sikder : Sifat Sikder
October 23, 2021, 12:48 am

কুতুবপুরে মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে মাদকভিত্তিক কিশোর গ্যাং

Reporter Name
  • Update Time : Sunday, November 1, 2020

ফাইল ছবি

উদ্ভট চালচলন, বাহারি চুলের ছাট, দলবেঁধে মহড়া, ইভটিজিংয়ে সিদ্ধহস্ত কিশোর গ্যাংয়ের উপদ্রুব বেড়েই চলেছে। ঢাকার নিকটতম জেলা নারায়ণগঞ্জেও এই ‘গাং কালচার’ প্রকট আকার ধারণ করেছে। পিছিয়ে নেই সদরের কুতুবপুর ইউনিয়নও। ক্ষমতাসীন দলের রাজনৈতিক নেতাদের পৃষ্ঠপোষকতায় দিন দিন এরা বেপরোয়া হয়ে উঠছে। এসব গ্যাংয়ে এলাকাভিত্তিক একজন ‘বড় ভাই’ বা ‘ভাই’ রয়েছেন।

মূলত এসব ভাইরাই নিজেদের আখের গোছাতে রাজনীতির নাম করে ‘কর্মী বলয়’ গড়ে তোলার আড়ালে এসব কিশোরদের মাদক পরিবহনে ‘হাতিয়ার’ হিসেবে ব্যবহার করে।

নিম্নবিত্ত এবং মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানদেরই নিজেদের কব্জায় নিয়ে মাদক বিপণনের কাজে নামিয়ে দেয়। এদের প্রত্যেকের বয়স ১৪-২০ বছরের মধ্যে। নিজেদের স্বার্থেই এদের হাতে তুলে দেওয়া হয় ছুরি-চাকু থেকে শুরু করে দেশীয় অস্ত্র। মারামারির ঘটনাও ঘটায় প্রকাশ্যেই। এসব ‘কিশোর গ্যাং’ এর প্রতিটি সদস্যই ইয়াবা আসক্ত।

মাদক সেবন করে ফূর্তির নাম করে হর্ন বাজিয়ে প্রচণ্ড গতিতে সড়কে মোটরসাইকেল চালানো এবং নারীদের উত্ত্যক্ত করাই নিজেদের রেওয়াজে পরিণত করেছে।

আরও জানা যায়, ‘গ্যাং কালচারে’ জড়িত কিশোররা চুরি-ছিনতাই বা মাদক কারবারের মতো ভয়ঙ্কর অপরাধে নিজেদের জড়াচ্ছে। স্থানীয় এলাকার লোকজন তাদের মাদক সেবনকারী ও খুচরা বিক্রেতা হিসেবেই চিনেন। স্থানীয় এলাকাবাসী তাদের তাণ্ডবে অতিষ্ঠ।

সূত্র জানায়, ক্ষমতাসীন রাজনীতির ফ্রন্ট গিয়ারে থাকা পক্ষের ‘ঘেটু’ হিসেবেই এসব নিয়ন্ত্রকরা কাজ করেন। এ চক্রের কিশোরদের দারিদ্র্যতার সুযোগ নিয়ে অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে নিজেদের দলে টানে। লোভনীয় অর্থ তুলে দেওয়া হয় ওদের হাতে। আবার অনেকেই স্কুল-কলেজপড়ুয়া বন্ধুদের সংস্পর্শে এসে নিজেদের মাদক সেবনের খরচ জোগাতেও এ চক্রভুক্ত হয়। ক্রমশ এরা এ চক্রের স্থায়ী সদস্য হয়ে যায়। ফেসবুক, হোয়াটসআপসহ বিভিন্ন মাধ্যমে মাদকের অর্ডার নিয়ে নিজেদের প্রতিনিধি মারফত তাদের হাতে পৌঁছে দেয়।

পরিবারের উদাসীনতায় পাড়া-মহল্লা কেন্দ্রিক মাদক ব্যবসার সঙ্গে এরা জড়িয়ে পড়ছে। এসব প্রবণতা বন্ধে কিশোর-তরুণদের বুদ্ধিবৃত্তিক ও গঠনমূলক কাজে সম্পৃক্ত করতে হবে। খেলার মাঠ বাড়াতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 TV Site
Develper By ITSadik.Xyz