1. abir.sayeed@gmail.com : abir :
  2. xerosmac@gmail.com : Mohin Soy : Mohin Soy
  3. zakariashipon1993@gmail.com : Narayanganj Tribune : Narayanganj Tribune
  4. sifat.sikder13@gmail.com : Sifat Sikder : Sifat Sikder
July 27, 2021, 5:06 am

চীনকে উইঘুর মুসলিম ইস্যুতে প্রেসিডেন্টকে এরদোগানের হুঁশিয়ারি

Reporter Name
  • Update Time : Saturday, July 17, 2021
FILE PHOTO: Turkish President Recep Tayyip Erdogan and China's President Xi Jinping inspect an honour guard during a welcome ceremony at the Great Hall of the People in Beijing, China, July 2, 2019. Picture taken July 2, 2019. Roman Pilipey/Pool via REUTERS/File Photo

চীনের বাদবাকি নাগরিকদের মতোই শান্তিতে বসবাসের অধিকার রয়েছে সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিম। মঙ্গলবার, প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সাথে ফোনালাপে এ হুঁশিয়ারি দেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান।

চীনে উইঘুর মুসলিমদের ওপর নির্যাতন নিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে কথা বলেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। মঙ্গলবার দুই নেতার মধ্যে এই ফোনালাপ হয় বলে জানিয়েছে তুর্কি প্রেসিডেন্ট কার্যালয়। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, চীনা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এরদোগানের দ্বিপাক্ষিক নানা বিষয়েও কথা হয়েছে। চলতি বছরের এপ্রিলে চীনা রাষ্ট্রদূতকে তলব করে তুরস্ক। উইঘুরদের প্রতি চীনের আচরণ নিয়ে তুরস্কের একজন বিরোধী দলীয় নেতার মন্তব্যের পর দূতাবাস বলেছিল এই সমালোচনার জবাব দেওয়ার অধিকার তাদের রয়েছে। চীনা দূতাবাসের এমন অবস্থানের পর রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয়।

এ নিয়ে দুদেশের মধ্যে কিছুটা টানাপোড়েন চলছিল। এই টানাপোড়েনের মধ্যেই প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট কথা বললেন।

চীনা নাগরিকদের মতো করে দেশটিতে উইঘুর মুসলিমদের শান্তিতে বসবাস তুরস্কের জন্য যে গুরুত্বপূর্ণ সেটি বলেছেন এরদোগান। তবে তিনি এটিও বলেছেন যে, তুরস্ক চীনের জাতীয় সার্বভৌমত্বের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট কার্যালয় বিবৃতিতে আরও জানায়, উইঘুর তুর্কদের চীনের নাগরিকদের মতোই সমৃদ্ধি ও শান্তিপূর্ণ জীবন তুরস্কের জন্য যে গুরুত্বের তা তুলে ধরেছেন এরদোগান। তিনি চীনের সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রতি শ্রদ্ধার কথাও জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ফোনালাপে দুই নেতা দ্বিপক্ষীয় ও আঞ্চলিক ইস্যু নিয়ে কথা বলেছেন।এরদোয়ান চীনা প্রেসিডেন্টকে আরও বলেছেন, তুরস্ক ও চীনের মধ্যে বাণিজ্যিক ও কূটনীতিক ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে এবং দুই নেতা জ্বালানি, বাণিজ্য, পরিবহন ও স্বাস্থ্য নিয়ে কথা বলেছেন।

গত বছর চীনের সঙ্গে প্রত্যর্পণ চুক্তিতে সম্মত হওয়ার পর তুরস্কে বসবাসরত প্রায় ৪০ হাজার উইঘুর এরদোগান প্রশাসনের সমালোচনা করেছেন। মার্চ মাসে তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, অন্য দেশগুলোর সঙ্গে যেমন প্রত্যর্পণ চুক্তি রয়েছে এটিও তেমন একটি। চীনে উইঘুরদের ফেরত পাঠানোর বিষয় অস্বীকার করেন তিনি।

মার্চে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইয়ির আঙ্কারা সফরের সময় কয়েক হাজার উইঘুর বিক্ষোভ করেন। তুরস্কের কয়েকজন রাজনীতিকও মনে করেন, তুর্কি সরকার চীনের সঙ্গে সম্পর্কের খাতিরে উইঘুর অধিকারের কথা বিবেচনা করছে না। যদিও এরদোগান প্রশাসন এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 TV Site
Develper By ITSadik.Xyz