1. abir.sayeed@gmail.com : abir :
  2. xerosmac@gmail.com : Mohin Soy : Mohin Soy
  3. zakariashipon1993@gmail.com : Narayanganj Tribune : Narayanganj Tribune
  4. sifat.sikder13@gmail.com : Sifat Sikder : Sifat Sikder
September 27, 2021, 3:04 pm

বঙ্গবন্ধু বাঙালির মুক্তির অবিসংবাদিত নায়কঃ শ্রমিক লীগ নেতা রুহুল আমিন

Reporter Name
  • Update Time : Sunday, August 15, 2021

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ জাতীয় শ্রমিক লীগ, ফতুল্লা-পঞ্চবটি আঞ্চলিক শাখার অর্থ সম্পাদক রুহুল আমিন প্রধান বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একটি নাম নয়, একটি ইতিহাস। যে ইতিহাস রচনা করেছে হাজার বছরের শৃঙ্খল মোচনের এক অমর মহাকাব্য। তিনি প্রজ্বলিত এক নক্ষত্র, অগনিত মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার এক প্রস্ফুটিত গোলাপ। বাঙালি বিশ্বের যেখানেই থাকুক না কেন— তার আত্মপরিচয়ের ঠিকানা, অহঙ্কারের সাতকাহন, আত্মমর্যাদার প্রতীক- জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব।

আজ ১৫ আগস্ট (রোববার) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদাৎবার্ষিকী  স্মরণে জাতীয় শ্রমিক লীগ, কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব কাউসার আহমেদ পলাশের পক্ষে আয়োজিত দোয়া মাহফিল ও তোবারক বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে শ্রমিক নেতা রুহুল আমিন এসব কথা বলেন। কুতুবপুরের পূর্ব শাহী মহল্লায় যুবলীগ নেতা আল আমিন প্রধান ও তাঁর বন্ধুমহলে্র আয়োজনে অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হয়। এ সময়  এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর ও তাঁর পরিবারের সকল শহীদ সদস্যের রুহের মাগফিরাত কামনা্য দোয়া করা হয় ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের সকল সদস্যের নেক হায়াত কামনা করা হয়। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নকাজের সফলতাও প্রার্থনা করা হয়।

অনুষ্ঠানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে রুহুল আমিন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু বাঙালির চেতনার রাজ্যে মুকুটহীন রাজা, অপ্রতিদ্বন্দ্বী, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। এদেশের স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধিকার আন্দোলনের সাথে জ্বলজ্বলমান যে নামটি, তিনি হলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। ২৩ বছরের গোলামির জিঞ্জির ভেঙে তার ডাকেই ঘরে ঘরে গড়ে উঠেছিল দুর্গ। হাজার হাজার মাইল দূরের পশ্চিম পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি থেকেও তিনি ছিলেন মুক্তিসেনাদের ট্রেনিং ক্যাম্প আর শরণার্থীদের রিফিউজি ক্যাম্পের মানুষগুলোর হূদয় মাঝে ভাস্বর হয়ে। তার নামেই উজ্জীবিত হয়ে জীবন বাজি রেখে এক মুহূর্তের জন্যও কুণ্ঠিত হয়নি বাঙালি।

ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর সহধর্মিণী শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর একমাত্র ভাই শেখ আবু নাসের, পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শেখ রাসেল, নবপরিণীতা পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনি ও তাঁর অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বেগম আরজু মনি, ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত ও তাঁর পরিবারের কয়েকজন সদস্য, বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদসহ অনেককে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। বিদেশে অবস্থান করায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট খুনিরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারপ্রক্রিয়া বন্ধ করতে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে দীর্ঘ ২১ বছর বাঙালি জাতি বিচারহীনতার কলঙ্ককের বোঝা বহন করতে বাধ্য হয়। ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত সরকার বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে নিয়মতান্ত্রিক বিচারিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০১০ সালে ঘাতকদের ফাঁসির রায় কার্যকর করার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করে। তবে এখনো কয়েকজন খুনি বিদেশে পলাতক রয়েছে। তাদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকরের চেষ্টা করছে সরকার।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 TV Site
Develper By ITSadik.Xyz